FriendsDiary.NeT | Friends| Inbox | Chat
Home»Archive»

bipod e porar fozilot

bipod e porar fozilot

*

প্রিয়নবী মুহা'ম্মদ সাল্লালাহু আ'লাইহি ওয়া সাল্লাম
বলেছেন, "আল্লাহ যার কল্যাণ চান তাকে বিপদে
ফেলে পরীক্ষা করেন।" সহীহ বুখারীঃ ৫৩২১।
রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আ'লাইহি ওয়া সাল্লাম হতে
আরো বর্ণিত হয়েছে, "বিপদ যত মারাত্মক হবে,
প্রতিদানও তত মহান হবে। আল্লাহ তাআ'লা যখন
কোন জাতিকে ভালোবাসেন তখন তাদেরকে
(বিপদে ফেলে) পরীক্ষা করেন। যে লোক
তাতে (বিপদে) সন্তুষ্ট থাকে, তার জন্য (আল্লাহ্
তাআ'লার) সন্তুষ্টি বিদ্যমান। আর যে লোক তাতে
অসন্তুষ্ট হয় তার জন্য (আল্লাহ্ তাআ'লার) অসন্তুষ্টি
বিদ্যমান।" আত-তিরমিযীঃ ২৩৯৬, ইবনু মাজাহঃ ৪০৩১,
হাদীসটি হাসান, শায়খ আলবানী রহি'মাহুল্লাহ।
আর এ কারণেই নবী-রাসুল ও আল্লাহ তাআ'লার
নৈকট্যশীল বান্দাদেরকে তিনি বড় বড় বিপদ দ্বারা
পরীক্ষা করেছিলেন। অনুরূপভাবে, আজকের
যুগেও যেই বান্দা যত বেশি আল্লাহর নৈকট্য অর্জন
করবে, সে তত বেশি পরীক্ষার সম্মুখীন হবে।
(১) আল্লাহর নবী ইয়াক্বুব আ'লাইহি ওয়া সাল্লাম প্রিয়
সন্তান ইউসুফ আ'লাইহি ওয়া সাল্লামকে হারানোর
কারানে দীর্ঘ কষ্টের জীবন অতিবাহিত করার পর
এই দুয়া বলে আল্লাহ তাআ'লার কাছে আশ্রয় প্রার্থনা
করেছিলেনঃ
ﺇِﻧَّﻤَﺎٓ ﺃَﺷْﻜُﻮﺍ ﺑَﺜِّﻰ ﻭَﺣُﺰْﻧِﻰٓ ﺇِﻟَﻰ ﺍﻟﻠَّﻪِ
আমি আমার অসহনীয় বেদনা ও দুঃখ শুধু আল্লাহর
নিকট নিবেদন করছি।
সুরা ইউসুফঃ ৮৬।
(২) আইয়ুব আ'লাইহি ওয়া সাল্লাম সন্তান ও সম্পদ
হারিয়ে, কঠিন অসুখের মতো চরম পরীক্ষার সময়
এই বলে আল্লাহর কাছে সাহায্য প্রার্থনা
করেছিলেনঃ
"হে আমার রব্ব!
আমি তো দুঃখ-কষ্টে পড়েছি, আর নিশ্চয়ই আপনি
হচ্ছেন সর্বশ্রেষ্ঠ দয়ালু।"
সুরা আল-আম্বিয়াঃ ৮৩।
(৩) ইউনুস আ'লাইহি ওয়া সাল্লাম যখন গভীর
সমুদ্রের নীচে মাছের পেটের ভিতর
অন্ধকারের মতো বড় বিপদের সময় এই দুয়া পড়ে
আল্লাহর কাছে সাহায্য প্রার্থনা করেছিলেনঃ
ﻟَّﺎ ﺇِﻟَٰﻪَ ﺇِﻟَّﺎ ﺃَﻧﺖَ ﺳُﺒْﺤَﺎﻧَﻚَ ﺇِﻧِّﻲ ﻛُﻨﺖُ ﻣِﻦَ ﺍﻟﻈَّﺎﻟِﻤِﻴﻦَ
উচ্চারণঃঃ লা-ইলা-হা ইল্লা-আংতা সুবহা'-নাক! ইন্নী কুংতু
মিনাজ জোয়া-লিমীন।
অর্থঃঃ (হে আল্লাহ!) আপনি ছাড়া আর কোন (সত্য)
ইলাহ নেই। আপনি পবিত্র মহান। নিশ্চয় আমি ছিলাম যালিম।
সুরা আল-আম্বিয়াঃ ৮৭।
(৪) মানব জাতির জন্য মুজিজা এবং আল্লাহ তাআ'লার পক্ষ
থেকে বিশেষ একটি নিদর্শন হিসেবে কুমারী
নারী হয়েও মারইয়াম আ'লাইহি ওয়া সাল্লাম ঈসা আ'লাইহি
ওয়া সাল্লামকে গর্ভে ধারণ করেছিলেন।
সন্তান প্রসবের সময় মারইয়াম আ'লাইহি ওয়া সাল্লাম
কুমারী মাতা হিসেবে এই সন্তানকে নিয়ে অদূর
ভবিষ্যতে লোক সমাজে দুর্দশা ও দুর্নামের কথা
চিন্তা করে আফসোস করে বলেছিলেনঃ
“হায়! এর অনেক পূর্বেই যদি আমার মৃত্যু হয়ে
যেত, আর মানুষের স্মৃতি থেকে আমি বিলুপ্ত
হয়ে যেতাম!” সুরা মারইয়ামঃ আয়াত ২৩।
কিন্তু, আল্লাহর ইচ্ছা ছিল এই পুণ্যবতী নারীকে
সাময়িক কষ্টের মধ্য দিয়েই তাঁকে জগতবাসীর
সামনে শ্রেষ্ঠত্ব দান করবেন।

*




0 Comments 83 Views
Comment

© FriendsDiary.NeT 2009- 2019