FriendsDiary.NeT | Friends| Inbox | Chat
Home»Archive»

টেনিস খেলার ইতিবৃত্ত

টেনিস খেলার ইতিবৃত্ত

*


টেনিস খেলার মাঠটি খুব বড় নয়। মাঠের মতো গ্যালারিও খুব একটা বড় নয়। টিভিতে আমরা যখন টেনিস খেলা দেখি তখন খুব একটা দর্শক গ্যালারিতে দেখা যায় না। তাই স্বাভাবিকভাবেই বলতে পারি এই খেলাটার প্রতি দর্শকদের খুব বেশি টান নেই। তবে এই অল্প সংখ্যক দর্শকদের মধ্যে প্রায়ই গ্যালারিতে দেখা যায় বিশ্বের বাঘা বাঘা সব তারকাদের। এবার নিশ্চয়ই বুঝতে পারছেন টেনিস খেলার কদর কতখানি। বিশ্বের আর দশটা খেলার মতো নাম, যশ, খ্যাতি, সম্মান, অর্থকড়ি সবই রয়েছে এই খেলাটিতে।





শুরুটা যেভাবে হয়েছিল

অধিকাংশ ইতিহাসবিদের মতে, টেনিস খেলার শুরুটা হয়েছিল ফ্রান্সে। বারো শতকের কোনো এক সময় থেকে এই খেলাটির প্রচলন শুরু হয়। তবে জন্ম ফ্রান্সে হলেও মানুষ কিন্তু হয়েছে ইংল্যান্ডে। অর্থাৎ ফ্রান্সের বারো শতকের টেনিস ষোল শতকের দিকে ইংল্যান্ডে এসে জনপ্রিয়তা লাভ করে। ১৮৮২ সালে ‘লিমিংটন স্পা’ ক্লাবটি গঠনের মাধ্যমে টেনিসের আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরু হয়। তবে প্রথমদিকে সমাজের উচ্চ পর্যায়ের ইংরেজী ভাষাভাসি লোকদের খেলা ছিল এই টেনিস। সর্বপ্রথম ১৮৮৭ সালে আনুষ্ঠানিক প্রতিযোগিতার শুরু হয় টেনিসে। ইংল্যান্ডের বার্মিংহামে উইম্বলডনের অল ইংল্যান্ড ক্লাবে প্রথম উইম্বলডন চ্যাম্পিয়ন প্রযোগিতার আয়োজন করা হয়। এভাবেই অনেক বছর কেটে যায়। এরপর ১৯২৪ সালে এসে জন্ম হয় ইন্টারন্যাশনাল টেনিস ফেডারেশনের। এরপরই আন্তর্জাতিকভাবে পথচলা শুরু হয় টেনিসের। আরেকটা বিষয় হলো বিভিন্ন ধরনের টেনিস খেলার মধ্যে এই খেলাটি ‘লন টেনিস’ নামে পরিচিত।



খেলার ধরন

আর দশটা খেলার মতো টেনিসেও দুটি পক্ষ একে অপরের মোকাবেলা করে। তবে এর মধ্যে কিছুটা ভিন্নতা রয়েছে। যেমন – সিঙ্গেল ও ডাবল। সিঙ্গেল বলতে বোঝায় এক জন করে খেলোয়াড় একে অপরের মোকাবেলা করবে এবং ডাবল এ দুই পক্ষেই দুইজন করে খেলোয়াড় থাকবে।



এবার আসা যাক টেনিস কোর্টের দিকে

খেলার ধরনের মতো টেনিস কোর্টেরও ভিন্নতা রয়েছে। পাঁচ ধরনের টেনিস খেলার কোর্ট থাকলেও সাধারণত তিন ধরনের কোর্টে পেশাদার টেনিস খেলা হয়ে থাকে। এই কোর্টগুলোর ভিন্নতা শুধুমাত্র পায়ের নিচের অংশটুকুতেই। অর্থাৎ যে অংশের উপর টেনিস কোর্ট তৈরি করা হয় সেই অংশটুকু কিসের, তার উপর ভিত্তি করে। যেমন –

ক্লে কোর্ট বা মাটির কোর্ট: দুই ধরনের মাটির কোর্ট আছে-লাল ও সবুজ মাটির। ফ্রেঞ্চ ওপেন খেলা হয় লাল মাটিতে। ক্লে কোর্টে তুলনামূলক বলের গতি কম হয়। বল এখানে তুলনামূলক বেশি স্পিন করে।
হার্ড কোর্ট: সাধারণত কনক্রিট, অ্যাক্রেলিক ও অ্যাসফল্ট দিয়ে তৈরি হয় এ ধরনের কোর্ট। উদাহরণ হিসেবে আছে অস্ট্রেলিয়ান ও ইউএস ওপেন। এ কোর্টে বলের বাউন্স অনেক বেশি এবং অনেক বেশি গতিতে ছোটে বল।
গ্রাস কোর্ট: নামেই বুঝতে পারছেন ঘাসের কোর্ট। উইম্বলডন খেলা হয় এ সারফেসে। এ ধরনের কোর্টে বিরক্তিকর বাউন্স তৈরি হয় এবং বল তুলনামূলক বেশি গতিতে আসে।
কার্পেট কোর্ট: কোনো ধরনের কৃত্রিম সারফেস বসিয়ে খেলার ব্যবস্থা। এক সময় বেশ জনপ্রিয় ছিল। এখন আর পেশাদার টেনিসে ব্যবহৃত হয় না।
কাঠের কোর্ট: ১৮৮০ থেকে বিংশ শতাব্দীর প্রথমভাগ পর্যন্ত দারুণ জনপ্রিয় ছিল কাঠের সারফেসে টেনিস খেলা। ধীরে ধীরে এ কোর্টটি বিলুপ্তই হয়ে গেছে বলা যায়।


কোর্টের আয়তন

ম্যাচের ধরনের উপর ভিত্তি করে কোর্টের ধরন নির্ধারিত হয়। যেমন – সিঙ্গেল ম্যাচে কোর্টের আয়তন হয় লম্বায় ৭৮ ফুট এবং চওড়ায় ২৭ ফুট। আবার ডাবল ম্যাচে লম্বায় আয়তন ঠিক থাকলেও চওড়ায় হয় ৩৬ ফুট। কোর্টের মাঝামাঝি যে জালটি থাকে দুইক্ষেত্রেই সেটি ৩ ফুট ৬ ইঞ্চি উঁচু থাকে। এছাড়া জালের দুই পাশে দুটি করে চারটি সার্ভিস কোর্ট থাকে। জাল থেকে এদের দৈর্ঘ্য হয় ২১ ফুট। আর লম্বায় দুই পাশে দুইটি নির্দিষ্ট মাপের ট্রাম লাইন রয়েছে।



কোর্টের যুদ্ধের নিয়ম

টেনিস ব্যাট হাতে দুই পক্ষ জালের দুই দিকে অবস্থান নেয়। প্রথমে এক পক্ষকে বল সার্ভ করতে হয়। তিনি তার প্রান্তের কোর্টের বেস লাইনের বাইরে থেকে বল সার্ভ করতে হয়। যিনি বল সার্ভ করেন তাকে বলা হয় সার্ভার। সার্ভারকে বেস লাইনের বাইরে থেকে বল সার্ভ করতে হলেও অপর প্রান্তে যিনি বল মোকাবেলা করবেন তিনি কোর্টের যে কোনো জায়গা থেকে তা করতে পারবেন। যে পক্ষ বল মোকাবেলা করে তাকে বলা হয় রিসিভার। সার্ভিসের বল খেলোয়াড়ের বিপরীত দিকের সার্ভিস কোর্টে পাঠাতে হয় মাঝখানে যে জালটি রয়েছে সেটি না স্পর্শ করিয়ে। প্রথমবার বল সার্ভ করার সময় কোনো ভুল হলে তাহলে সার্ভার দ্বিতীয়বার সার্ভ করার সুযোগ পায়। তবে দ্বিতীয়বার সার্ভ করতে কোনো ভুল করলে ‘ডাবল ফল্ট’ হিসেবে রিসিভার পয়েন্ট পায়। যদি সার্ভ সঠিকভাবে হয় তাহলে মূল খেলা এখান থেকেই শুরু হয়ে যায়। এভাবে চলতে থাকে প্রতিপক্ষের কোর্টে বল ফেরত পাঠানোর যুদ্ধ। যদি কোনো পক্ষ তার প্রতিপক্ষের কোর্টে বল ফেরত পাঠাতে ব্যর্থ হন তাহলে অপর পক্ষ পয়েন্ট পায়। তবে একটা বিষয় লক্ষ্য রাখতে হবে যে, বল ফেরত পাঠানোর ক্ষেত্রে একবারই ব্যাট দিয়ে বলে আঘাত করা যাবে এবং বলটি দ্বিতীয়বার মাটি স্পর্শ করার আগেই তা করতে হবে।



যেভাবে পয়েন্ট ও স্কোরিং নির্ধারিত হয়

সার্ভার বল সার্ভ করার পর রিসিভার যদি বল ফেরত পাঠাতে না পারেন সেক্ষেত্রে সার্ভার ১ পয়েন্ট পাবেন। আর সার্ভার যদি দুইবার বল সার্ভ করতে গিয়ে ভুল করেন সেক্ষেত্রে ১ পয়েন্ট পাবেন রিসিভার। টেনিসে ১, ২, ৩ এভাবে পয়েন্ট হিসাব না করে ১৫, ৩০, ৪০ এভাবে ১ম তিন পয়েন্ট হিসাব করা হয়। চতুর্থ পয়েন্টে গিয়ে হয় গেম। এক পয়েন্ট এগিয়ে থাকাকে বলে অ্যাডভান্স, পয়েন্ট সমান হলে ডিউস। একটি গেম জিততে গেলে প্রতিপক্ষের চেয়ে কমপক্ষে ২ পয়েন্টে এগিয়ে থাকতে হয়। নতুবা খেলা চলতেই থাকে।
এভাবে ছয়টি গেম দিয়ে হয় একটি সেট। এভাবে তিন বা পাঁচটি সেটে খেলার নিষ্পত্তি হয়। সাধারণত মেয়েদের বেলায় তিন সেটে এবং ছেলেদের বেলায় পাঁচ সেটের খেলা হয়। সেট ব্যবধান ২ থাকলে তবে একজনের জয় হয়। তবে গেম জেতার জন্য কোনো খেলোয়াড়কে পর পর দুই পয়েন্ট পেতে হয়। এভাবে কোনো খেলোয়াড় যদি প্রতিপক্ষ খেলোয়াড়ের সাথে কমপক্ষে দুই গেম ব্যবধান রেখে ছয়টি গেম জয় করতে পারে তবে সে একটি সেট জিতে নিতে সক্ষম হয়। এভাবে সর্বোচ্চ সেট জয়ী খেলোয়াড় বিজয়ী হয়। কোনো সেটে ৬-৬ গেমে সমতা চলে আসলে তখন খেলা গড়ায় টাইব্রেকারে। সেখানে দুই খেলোয়াড় মোট ১২ পয়েন্টের জন্য খেলেন; প্রতি সার্ভিসে এক পয়েন্ট। যিনি আগে ৭ পয়েন্ট জিততে পারবেন, সেট তার। তবে শেষ সেটে খেলা গড়ালে তখন আর টাইব্রেকার পয়েন্টের ব্যবধানে হয় না। তখন ফের দুই গেমের ব্যবধান রেখে জয় নিশ্চিত করতে হবে।



টেনিসের গ্র‌্যান্ডস্লাম

টেনিস খেলোয়াড়দের নামের শেষে শোনা যায় ‘গ্র‌্যান্ডস্লাম’ বিজয়ী। এই ‘গ্র‌্যান্ডস্লাম’ হচ্ছে টেনিসের ৪টি টুর্নামেন্টের সমষ্টি। যে খেলোয়াড় এই চারটি টুর্নামেন্টেরই শিরোপা অর্জন করে তাকে বলা হয় ‘গ্র‌্যান্ডস্লাম’ বিজয়ী। এই চারটি টুর্নামেন্টের মধ্যে রয়েছে - অস্ট্রেলিয়ান ওপেন, ফ্রেঞ্চ ওপেন, উইম্বলডন ও ইউএস ওপেন।

*




0 Comments 125 Views
Comment

© FriendsDiary.NeT 2009- 2020