Post Archive
FriendsDiary.NeT |Friends|Inbox|Chat
Home»Archive»গাইনোকোম্যাস্টিয়া
গাইনোকোম্যাস্টিয়া

*

√√গাইনোকোম্যাস্টিয়া

>>পুরুষের অস্বাভাবিক স্তন বড় হওয়ার কারন ও দিক নির্দেশনা

>>পুরুষদের ক্ষেত্রে স্তন পরিবর্ধনের ঘটনা মূলত ঘটে পুরুষ ও নারী হরমোনের অসামঞ্জস্যের জন্য। অ্যান্ড্রোজেন হল পুরুষ হরমোন এবং ওয়েস্ট্রোজেন হল নারী হরমোন। ১৯ থেকে ২৫ বছর বয়সের ছেলেদের মধ্যে এই সমস্যা সবচেয়ে বেশি হয়। যদিও মধ্যবয়সে গিয়ে যে এই সমস্যা একেবারেই হয় না তা নয়।

সাধারণভাবে মানুষের মধ্যে ভুল ধারণা থাকে পুরুষদের শরীরে পুরুষ হরমোন ও মেয়েদের শরীরে নারী হরমোন থাকে। কিন্তু তা সম্পূর্ণ ভুল। দুই হরমোনই পুরুষ ও নারীর উভয়ের শরীরে থাকে।

তবে পুরুষদের ক্ষেত্রে অ্যান্ড্রোজেনের প্রভাব বেশি থাকে, আর মেয়েদের শরীরে ওয়েস্ট্রোজেনের। কিন্তু যদি কোনও পুরুষের শরীরে অস্বাভাবিকভাবে ওয়েস্ট্রোজেন হরমোনের গ্রহণক্ষমতা বেশি হয়, তাহলে স্থুল স্তনের সমস্যা হতে পারে। তবে এমন রোগীর সংখ্যা খুব কম। মূলত অপুষ্টি, শারীরিক নিষ্ক্রিয়তা এবং স্টেরয়েডের ফলে এই ধরনের সমস্যা বেশি হয়।

পুরুষের স্তন বড় হওয়ার কারণ হতে পারে গোইনোকোম্যাস্টিয়াও। মূলত পুরুষের ছাতি হবে শক্ত, পেটানো। কিন্তু কোনো কোনো পুরুষের স্তনবৃন্তের ঠিক নীচে শক্ত টিস্যু তৈরি হয়। ১ থেকে ২ ইঞ্চ লম্বা হয় সেই টিস্যু। দু’টি বৃন্তের নীচেই গজিয়ে ওঠে তা। ফলে শক্ত ও টাইট হওয়ার পরিবর্তে নরম হয়ে ওঠে বুক, ঝুলে আসে সামনের দিকে। দেখে মনে হয় নারীর মতোই দু’টি স্তন।

গাইনোকোম্যাস্টিয়ার কারণ----
======================

বয়ঃসন্ধির সময় হরমোনের ভারসাম্য হারালে পুরুষের স্তনবৃন্তের নীচে টিস্যু তৈরি হতে পারে।
নিষিদ্ধ ড্রাগ, ডাক্তারের প্রেসক্রিপশন ছাড়া ওষুধ খেলেও হতে পারে এই সমস্যা।
গোইনোকোম্যাস্টিয়া কোনো রোগ নয়। এটি অন্য রোগের উপসর্গ মাত্র।
নারী শরীরে ওয়েস্ট্রোজেন হরমোন বাড়লে স্তনের বৃদ্ধি ঘটে। পুরুষ শরীরে স্তন বাড়তে পারে অ্যান্ড্রোজেন হরমোন বেশি নিঃসরিত হলে।

পুরুষ হরমোন টেস্টোস্টেরনের উৎপাদনের মাত্রা কমে গেলেও গাইনেকোমাস্টিয়া হতে পারে। এই টেস্টেস্টেরনের উৎপাদনের মাত্রা কমে যেতে পারে। জন্মগত বা অর্জিত অন্ডকোষের সমস্যার কারণে। হাইপোথ্যালামাস কিংবা পিটুইটারির রোগও টেস্টোস্টেরনের মাত্রা কমাতে পারে। অ্যানাবলিক অ্যান্ড্রোজেনিক স্টেরয়েডের অপব্যবহারও একই প্রভাব ফেলে।

দিক নির্দেশনা---
______________
আপনাকে পুরো শরীরের প্রতি নজর দিতে হবে, যা আপনার স্তন ছোট করতে সাহায্য করবে। তাই ফিগার মেনটেইন করতে হবে আগে।
অস্বাস্থ্যকর খাবার বর্জন: অস্বাস্থ্যকর খাবার, বিশেষ করে ফাস্টফুড খাবার বর্জন করতে হবে। এছাড়া চিনিজাতীয় খাবারও বর্জন করতে হবে। বিভিন্ন সফট ড্রিংক্স, জুস, আইসক্রিম, চিপস, তেলে ভাজা খাবার যতটা সম্ভব কম খান।
পুষ্টি: স্বাস্থ্যকর খাবার, বিশেষ করে শাক-সবজি বেশি করে খাবেন। দু’ঘন্টা অন্তর লো-ক্যালোরির খাবার খান। এতে আপনার শরীরের অতিরিক্ত ক্যালোরি ঝরে যাবে এবং আপনার শরীরের ওজনও কমে যাবে। তবে সফট ড্রিংক্স এবং জুস খুব কম পান করুন, কারণ, এতে থাকা অতিরিক্ত চিনি আপনার স্তন কমানোর বদলে বৃদ্বি করতে সাহায্য করবে। বুকের ব্যায়াম গুলো বেশি করতে হবে যেমন সাতার কাটতে পারেন বুক ডাউন দিতে পারেন,দৌড়ানোও একটি ভাল ব্যায়াম।
0 Comments 63 Views


0/0