FriendsDiary.NeT | Friends| Inbox | Chat
Home»Archive»

আবেগী মটকা মামা

আবেগী মটকা মামা

*

ছোটবেলা থেকেই মটকা মামার আবেগ অনেক।প্রাইমারি তে থাকতে একটা মেয়েকে চকলেট দিয়েছিলো। মেয়েটা চকলেট না নেওয়ায় মামা ওইদিন আর ভাতই খায় নি।

ধীরে ধীরে মটকা মামা বড় হতে লাগলো কিন্তু সেই ছোটবেলার আবেগ তার আর গেলো না। এর একটা কারণ ও আছে।ছোটবেলা থেকেই মটকা মামা মান্না,বাপ্পারাজ,আলমগীর,সাবানা এদের সিনেমা দেখতো আর টিস্যুবক্স নিয়ে বসতো।সিনেমা দেখে কখনো কখনো মামা সারাদিন ও কাদতো।

অনেক বছরের একটা রিলেশন শেষ হয়ে যাওয়ার পর একটা সময় মটকা মামা এফডিতে আইডি খুলে ফেলে। একেতো ছেকা খাওয়ার কষ্ট তার উপর এফডির টূর্ণামেন্ট এ কোন ম্যাচ হারার কষ্ট মটকা মামার কষ্টকে দ্বিগুণ করে দিতো। তাইতো সাথে সাথে লগ আউট দিয়ে স্টার জলসার সিরিয়াল দেখে কান্না করতো মটকা মামা। এর ব্যাখ্যা ও আছে তার কাছে। কাদলে মন হালকা হয়।সেই জন্য সারাদিন স্টার জলসার সিরিয়াল দেখতেও রাজি।

মটকা মামা এফডিতে অনেকদিন স্টাফ হিসেবে ছিলো।তারপর বাদ পড়ে যাওয়ায় সেন্টি খেয়ে অনেকদিন অফলাইনে ছিলো। এই সময়টাতে মটকা মামা মাহফুজুর রহমান,হিরো আলম, ব্যারিস্টার সুমন এই সব মনিষীদের ভিডিও দেখে মনে মনে বলে,"খেলা এখনো বাকি আছে।এদের মতো শিরোনামে এসে এবার স্টাফ হবো।"

মটকা মামা এবার সাউট,কুইজ, টূর্ণামেন্ট সব কিছুতে নজর দিলো। একদিন টপ সাউটার হলে সেটার প্রচারণা ৭ দিন ধরে করতো। যার নজর সাধারণ ইউজার এর নিকট পড়তো। তারপর অনেক একটিভ ও ছিলো। ফলে টানা ৩ বার বেস্ট মেল মেম্বার হয়ে যায়। তবে একটিভিটি ছাড়াও মটকা মামার প্রচারণা ও ছিলো সেই লেভেলের।মামার থেকে অনেক কিছু শেখার আছে।😉😉

ভিলেনদের ভিতর মটকা মামা মিশা সওদাগর এর অনেক বড় ভক্ত। তাই অবসর সময়ে মেকআপ করে নিজেকে মিশা সওদাগর বানিয়ে অভিনয় করে মটকা মামা। যার কারণে মামার বুকে আগুন জ্বলে। অন্য কেউ গফ পেলে,টপ সাউটার হলে মামা যেন সহ্যই করতে পারতো না।

তারপর একদিন মটকা মামা আবার স্টাফ হয়ে যায়। আর হওয়ারই কথা। স্টাফ হওয়ার আগে তার একটিভিটি ছিলো দেখার মতো। বাথরুমে গিয়েও তিনি এফডিতে থাকতেন।

স্টাফ হওয়ার পরই মটকা মামা সেই রকম একটিভ ছিলো কিন্তু বেস্ট স্টাফ না হওয়ায় আবার সেন্টি খায় মটকা মামা। মটকা মামা তাই আগের প্রচারণা শুরু করলো। প্রতিদিন তিনি সাউটে বলতো এতো কিছু করেও বেস্ট স্টাফ অন্যজন হবে। সাধারণ জনগণও আবেগে ভেঙে পড়ে মটকা মামার কষ্ট দেখে। তাই পরের বার বেস্ট স্টাফ মটকা মামা হয়ে যায়। তবে তার একটিভিটি নিঃসন্দেহে ভালো ছিলো।

স্টাফ হয়েও মনে কোন শান্তি থাকবে না যদি থাকেন সিংগেল। মটকা মামা এটা বুঝতে পারে। তাই ধীরে ধীরে সাইটের পিচ্চি মেয়েগুলোকে প্রপোজ করা শুরু করে।সবাই রিজেক্ট করতে থাকে। মটকা মামার কষ্ট ও বাড়তে থাকে।

ছেকা খেয়ে এবার মটকা মামা সিমথিয়া আর রেহনুমা আপু কে টার্গেট করে। জানতে পারে রেহনুমা আপুর বাড়ি ব্রাক্ষ্মণবাড়িয়া।তাই মটকা মামা ভয়ে আর ওদিকে আগায় নি। সিমথিয়া তখন অফলাইনে ছিলো। যে কারণে ওকে প্রপোজ করা হয় নি মামার।

এবার মটকা মামা বিবাহিত মেয়েদের টার্গেট করে। টানু আপু থেকে শুরু করে অনেক মেয়েকেই প্রপোজ করে ফেলে। এখানেও কষ্ট পেয়ে মামা কিছুটা বোবা হয়ে যায়।


বর্তমানে মটকা মামা ভাবি পটানোর চেষ্টায় আছে। হিরা ভাই বিস্তারিত জানে এসব খবর।+yu+

মটকা মামার আবেগ যতই হোক ছেলে ভালো। ১০ এ ১০,, এতো ছেকা খায় তাও কি কোন মেয়ের মায়া হয় না? এই আর্কাইভ কোন সিংগেল মেয়ে পড়লে মামার নাম্বারে একটা ফোন দিয়েন। মামার নাম্বার 01**********

*




16 Comments 158 Views
Comment

© FriendsDiary.NeT 2009- 2021