FriendsDiary.NeT | Friends| Inbox | Chat
Home»Archive»

𝗦𝗽𝗲𝗰𝘁𝗿𝗮𝗹(2016)

𝗦𝗽𝗲𝗰𝘁𝗿𝗮𝗹(2016)

*

🎬𝗠𝗼𝘃𝗶𝗲: 𝗦𝗽𝗲𝗰𝘁𝗿𝗮𝗹
📽️𝗚𝗲𝗻𝗿𝗲: War, Science Fiction, Thriller
⏰𝗥𝘂𝗻𝘁𝗶𝗺𝗲: 1h 47min
🌍𝗖𝗼𝘂𝗻𝘁𝗿𝘆: USA, Moldova
🏳️𝗟𝗮𝗻𝗴𝘂𝗮𝗴𝗲: English, Russian, Romanian
📅𝗥𝗲𝗹𝗲𝗮𝘀𝗲 𝗗𝗮𝘁𝗲: 9 December, 2016
🟡𝗜𝗺𝗱𝗯 𝗥𝗮𝘁𝗶𝗻𝗴: 6.3/10
🟢𝗣𝗲𝗿𝘀𝗼𝗻𝗮𝗹 𝗥𝗮𝘁𝗶𝗻𝗴: 9.0/10
🍅𝗥𝗼𝘁𝘁𝗲𝗻 𝗧𝗼𝗺𝗮𝘁𝗼𝗲𝘀: 78%
💵𝗕𝘂𝗱𝗴𝗲𝘁: $70 million
⛔𝗦𝘂𝗯𝘁𝗶𝘁𝗹𝗲: Bsub is not available

#𝗡𝗼_𝗦𝗽𝗼𝗶𝗹𝗲𝗿

অনেকদিন পর অসাধারণ কন্সেপ্টের ইউনিক একটি সায়েন্স ফিকশন মুভি দেখলাম। গতানুগতিক ফ্লেভার থেকে অনেকটাই ভিন্ন ধাঁচের প্লটকে যুদ্ধের প্রেক্ষাপটকে কেন্দ্র করে তাতে সায়েন্স ফিকশন, অ্যাকশান, সাসপেন্স, থ্রিলার, সুপারন্যাচারাল, হরর এবং সার্ভাইভাল ইত্যাদি সবরকমের ইলিমেন্টসের এক দুর্দান্ত কম্বিনেশনে সুনিপুণভাবে সাজানো হয়েছে পুরো মুভিটা যা দেখে মুগ্ধ না হয়ে উপায় নেই; নেটফ্লিক্সের highly underrated একটা gem এই মুভিটা৷

#𝗣𝗹𝗼𝘁_and_𝗦𝘂𝗺𝗺𝗮𝗿𝘆:
পূর্ব ইউরোপের একটি যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশ মলডোভা, যেখানে সশস্ত্র বিদ্রোহী গ্রুপের বিরূদ্ধে দিনের পর দিন যুদ্ধ করে আসছে সেদেশের সরকারি বাহিনী এবং তাদের মিত্র যুক্তরাষ্ট্রের সেনাবাহিনী। যুদ্ধের মাঝেই একদিন হঠাৎ করে যুক্তরাষ্ট্রের সেনারা এক অদ্ভুত, অবিশ্বাস্য এবং অদৃশ্য শত্রুর মুখোমুখি হয় যাকে খালি চোখে দেখা যায় না, UV লাইট ব্যবহার করে শুধুমাত্র যাদের উপস্থিতি অনুধাবন করা যায় এবং যারা চোখের পলকে নিমেষের মধ্যে আশ্চর্যজনকভাবে তাদের মুখোমুখি হওয়া সৈন্যদেরকে মেরে ফেলছে। এমতাবস্থায় বিষয়টা বিদ্রোহী যোদ্ধাদের চেয়েও বড় মাথাব্যথার কারন হয়ে দাঁড়ায় এবং যুক্তরাষ্ট্র থেকে একজন মিলিটারি রিসার্চারকে আনা হয় এবং মিলিটারিদের সমন্বয়ে একটি টিম গঠন করা হয় এর রহস্য উদঘাটনের জন্য; নানান জল্পনাকল্পনা, ধারনা, যুক্তি ইত্যাদির বেড়াজাল পেরিয়ে তারা কি পেরেছিলো সে রহস্য উদঘাটন করছে, কারা ছিলো সেসব অদৃশ্য শক্তি, তারা কি ভিন্ন জগতের কোনো সত্ত্বা নাকি এসবের পিছনে লুকিয়ে আছে আরো বড়সড় কোনো রহস্য, তাদের কাছ থেকে কি আদৌ মুক্ত করা সম্ভব এই পৃথিবীকে; জানতে হলে দেরি না করে দেখে ফেলুন মুভিটি৷

#𝗣𝗲𝗿𝘀𝗼𝗻𝗮𝗹_𝗢𝗽𝗶𝗻𝗶𝗼𝗻:
আমার দেখা ওয়ান অফ দ্য বেস্ট সায়েন্স ফিকশন স্টোরি ছিলো। হার্ডকোর মিলিটারি অ্যাকশান বেসড এই সায়েন্স ফিকশন মুভির গল্পে মোটামুটি অনেকগুলো জনরা এবং সাব-জনরার প্রেজেন্স ছিলো সাথে সাইন্সের বিভিন্ন টপিকের উপর ডিটেইলিংগুলোও চমৎকার লেগেছে। যুদ্ধবিধ্বস্ত ফিউচার ওয়ার্ল্ড, ফিউচার ওয়েপনস, অ্যাডভান্সড টেকনোলজি, মিলিটারি সেক্টরে মডার্ন সাইন্সের ভূমিকা, সাইন্সের বিভিন্ন থিওরি, টার্মস, অ্যাপ্লিকেশনস & ইফেক্টস সাথে ফিকশনাল টার্মসের মিক্স আপ ইত্যাদির প্রোপার ডিটেইলিং এবং এক্সিকিউশন ছিলো চমৎকার।
আর স্ক্রিনপ্লে ছিলো যথেষ্ট ফাস্ট আর এংগেজিং, এক মুহূর্তের জন্য স্ক্রিন থেকে চোখ সরানোর উপায় ছিলো না৷ শুরু থেকেই কাহিনীতে প্রবেশ করে আর পুরোটা সময় একটার পর একটা টুইস্ট উন্মোচন হয়, টানটান উত্তেজনা আর সাসপেন্সের আবহ যেনো মোহাচ্ছন্ন করে রেখেছিলো আমাকে। আর ঘন ঘন যুদ্ধ টাইপের হাই অকটেন মিলিটারি অ্যাকশান এবং মিশনগুলোও ছিলো পুরো মনোযোগ ধরে রাখার মতো।

প্রত্যেকটা রোলের চরিত্রায়ন এবং অভিনয় পুরোটা সময় মুগ্ধ নয়নে উপভোগ করে গেছি। বিশেষ করে মিলিটারির রোলগুলো ছিলো একদম পারফেক্ট, দেখে মনে হচ্ছিলো বাস্তবের কোনো মিলিটারি অপারেশন দেখছি৷ আফসোস, কোনো স্টারকাস্ট অথবা বিখ্যাত কোনো ডিরেক্টর না থাকায় এমন মানসম্মত একটা মুভিটা নিয়ে চর্চা খুব কম হয়েছে৷

মুভিটার নজরকাড়া সিনেমাটোগ্রাফি আর চোখ ধাঁধানো ভিএফএক্সের কাজের প্রশংসা না করলেই নয়৷ অসাধারণ সব ক্যামেরা ওয়ার্ক, শট অ্যাঙ্গেল এবং লাইটিংয়ের মাধ্যমে যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশের প্রেক্ষাপট এবং বিভিন্ন অ্যাকশান সিকোয়েন্স এর উপস্থাপনা ছিলো দৃষ্টিনন্দন, যা ছিলো ইনভেস্ট করা বিগ বাজেটের একদম প্রোপার ইউজ৷ এছাড়া হাই কোয়ালিটির কম্পিউটার গ্রাফিক্স, নিখুঁত প্রোডাকশন ডিজাইন, ডার্ক শেডের কালার গ্রেডিং, প্রত্যেকটা দৃশ্যের ঘটনার সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ ব্যাকগ্রাউন্ড মিউজিক, পারফেক্ট এডিটিং, যথাযথ সাউন্ড মিক্সিং, এক্যুরেট কস্টিউম ডিজাইন এবং শ্যুটিং সেটে প্রয়োজনীয় বিভিন্ন ম্যাটেরিয়ালস, বাস্তব এবং কাল্পনিক সমরাস্ত্র এবং যুদ্ধযানের(ট্যাংক, আরমার্ড ক্যারিয়ার, স্পেস হেলিকপ্টার, রোবট) ব্যবহার ইত্যাদি সবকিছু মুভির প্রত্যেকটা দৃশ্যকে এতোটা রিয়েলিস্টিকভাবে উপস্থাপন করেছে যে আমার কাছে মনে হচ্ছিলো ঘটনাগুলো যেনো আমার চোখের সামনে ঘটছে, এক ধাক্কায় যেনো হারিয়ে গিয়েছিলাম সেই অ্যাপোক্যালিপস জগতে, অনুভব করতে পারছিলাম প্রত্যেকটা ঘটনাকে।

মুভির দুর্দান্ত মেকিং আর ব্রিলিয়ান্ট ডিরেকশন এর কথাও উল্লেখ না করলেই নয়৷ ডিরেক্টর নিক ম্যাথিউয়ের ডিরেকশন, আর্ট অফ স্টোরি টেলিং, স্টোরি বিল্ড-আপ এবং ক্যারেক্টার ডেভেলপমেন্ট ইত্যাদিতে নিজের দক্ষতা এবং প্রতিভার ছাপ রেখেছেন, মুভির স্ক্রিনপ্লে রাইটিংয়েও তিনি ছিলেন। আর মুভিটা দেখলেই বুঝা যায়, এর প্রত্যেকটা দৃশ্য খুব যত্ন সহকারে সময় নিয়ে তৈরি করা হয়েছে।

মুভিটির শ্যুটিং শুরু হয়েছিলো ২০১৪ সালের মাঝামাঝি সময়ে এবং শ্যুটিংয়ের বেশিরভাগ কাজ সম্পন্ন করা হয় হাঙ্গেরির বুদাপেস্ট এর কিছু রাস্তা এবং বিল্ডিংয়ে। ২০১৫ সালে মুভিটির শ্যুটিং শেষ হয় এবং ২০১৬ সালের শুরুর দিকে প্ল্যান হয়ে হয়েছিলো মুভিটি থিয়েটারে রিলিজ দেওয়ার কিন্তু পরবর্তীতে সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করে নেটফ্লিক্সের কাছে রাইটস বিক্রি করে সে বছরের ডিসেম্বরের দিকে অনলাইন প্লাটফর্মে সরাসরি মুক্তি দেয়৷ উল্লেখযোগ্য খ্যাতি এবং সাফল্য পাওয়ার পর, ২০১৭ সালে নেটফ্লিক্সের পক্ষ থেকে মুভিটির গল্পের একটি প্রিক্যুয়েল গ্রাফিক নভেল প্রকাশ করা হয় যা Comixology ওয়েবসাইটে এভাইলেবল।
মুভিটি দেখার পর আমার অভিমত, এটা থিয়েটারে রিলিজের যোগ্য এবং আমার বিশ্বাস, মুভিটা ভালো ব্যবসা করতো & গ্রহণযোগ্যতা পেতো। এর চোখ ধাঁধানো ভিএফএক্স এবং ভিডিও গেম লেভেলের গ্রাফিক্সের কাজগুলো যদি 3D স্ক্রিনে উপভোগ করা যেতো, তাহলে পুরো অন্যরকম একটা ফিল পাওয়া যেতো।

#𝗟𝗮𝘀𝘁_𝗼𝗳_𝗮𝗹𝗹, এমন দুর্দান্ত একটা মুভি সম্পর্কে আজ পর্যন্ত দেশি এবং বিদেশি বিভিন্ন গ্রুপে তেমন আলোচনা হতে দেখিনি। আপনাদের সবার জন্য হাইলি রেকমেন্ডেড একটা মুভি; অবশ্যই রাতে লাইট অফ করে একা একা দেখবেন তাহলে ভালো feel পাবেন কারন এখানে সায়েন্স ফিকশন, যুদ্ধ, অ্যাকশানের পাশাপাশি ডার্ক থিম এবং সুপারন্যাচারাল কিছু ইলিমেন্টসেরও প্রেজেন্স আছে যা আপনাকে হরর ফিল্মের চেয়ে কোনো অংশে কম ফিল দিবে না৷ আর লাইফে পুনরায় ফিল করলাম যে আইএমডিবি রেটিং দেখে কখনো কোনো মুভিকে বিবেচনা করা ঠিক না।
তাই আর দেরি কেনো, আজই দেখতে বসে যান মুভিটা এবং উপভোগ করুন আপনার অবসর সময়। 😊😊
©Mehedi Masud

*




0 Comments 45 Views
Comment

© FriendsDiary.NeT 2009- 2023